মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ১৯ জুন ২০১৭

ড. মোঃ জাহাঙ্গীর আলম বিনাতে নতুন পরিচালক (প্রশিঃ ও পরিকল্পসা) হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন।


প্রকাশন তারিখ : 2017-05-31

ড. মোঃ জাহাঙ্গীর আলম কৃষি মন্ত্রণালয় কর্তৃক নিয়োগ পেয়ে ৩১ মে, ২০১৭ তারিখ বাংলাদেশ পরমাণু কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট (বিনা)-এ পরিচালক (প্রশিক্ষণ ও পরিকল্পনা) হিসেবে যোগদান করেন। তিনি ১৯৮৮ সালে বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা (কীটতত্ত্ব) হিসেবে বাংলাদেশ পরমাণু কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটে যোগদানের মধ্য দিয়ে তাঁর কর্মজীবন শুরু করেন। তিনি ১৯৯৭ সালে ঊর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা, ২০০৯ সালে প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা এবং ২০১৫ সালে মুখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা হিসেবে পদোন্নতি পান। তিনি ১৯৮০-৮১ সেশনে ভর্তি হয়ে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বি.এসসি.এজি (অনার্স) এবং পরবর্তী এম.এসসি.এজি সম্পন্ন করেন এবং চিবা ইউনিভার্সিটি, জাপান থেকে ২০০১ সালে কীটতত্ত্ব বিষয়ে পিএইচডি ডিগ্রি অর্জন করেন।  বিভিন্ন আন্তর্জাতিক ট্রেনিং, সেমিনার, সিম্পোজিয়াম, ওর্য়াকশপ ও কনসালটেশনে যোগদানের উদ্দেশ্যে তিনি জাপান, চীন, মালয়েশিয়ায় ভ্রমণ করেন। দেশি বিদেশি জার্নালে তাঁর ৩৯ (ঊনচল্লিশ)টি গবেষণামূলক নিবন্ধ প্রকাশিত হয়েছে। থিসিস, বুক, বুকলেট, ক্যাটালগ, মনোগ্রাফ, লিফলেট এবং বুলেটিনসহ তাঁর বিভিন্ন প্রকাশনা রয়েছে। ড. মোঃ জাহাঙ্গীর আলম, বাংলাদেশ পরমাণু কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট (বিনা) থেকে বিভিন্ন ফসলের সর্বমোট ২২টি উদ্ভাবিত জাত (ধান, ছোলা, টমেটো) উদ্ভাবনে সহযোগী গবেষক হিসেবে জড়িত ছিলেন। এছাড়াও তিনি কীটতত্ত্ব বিভাগের বিভাগীয় প্রধানের দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি অতিরিক্ত দায়িত্ব হিসেবে বিভিন্ন মেয়াদে কৃষি অর্থনীতি বিভাগ এবং উদ্যানতত্ত্ব বিভাগের বিভাগীয় প্রধান হিসেবে কাজ করেন। ব্যক্তিগত জীবনে তিনি এক পুত্র এবং দুই কন্যা সন্তানের জনক। তিনি ১৯৬৩ সালের ৩১ মাচ ময়মনসিংহ জেলার মুক্তাগাছা উপজেলাধীন দুল্লা ইউনিয়নের খিলবাড়ী গ্রামের এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি জনাব মোঃ ইস্রাফিল হোসেন ও মোছাঃ ফজিলা খাতুন-এর জ্যেষ্ঠ পুত্র। 


Share with :
Facebook Facebook